মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

সিটিজেন চার্টার

বিআইডব্লিউটিএ, চাঁদপুর এর সিটিজেন চার্টার

ক্রঃ নং

বিবরণ

কার্যক্রম

০১। বন্দর ও পরিবহন বিভাগ

 

বন্দর বিভাগের নিয়ন্ত্রনাধীণ চাঁদপুর জেলায় ২৩টি, কুমিল্লা জেলায় ০৯টি, বি-বাড়ীয়া জেলায় ১১টি, শরীয়পুর জেলায় ০৮টি, মাদারীপুর জেলায় ০১টি ও লক্ষীপুর জেলায় ২টি অর্থাৎ ০৬টি জেলায় মোট ৫৪টি ঘাট/পয়েন্ট রয়েছে এবং ০৩টি ফেরী ঘাট রয়েছে (লক্ষীপুর জেলার মজু চৌধুরীর হাট ফেরীঘাট, হরিনা ও আলু বাজার ফেরীঘাট)। চাঁদপুর নদী বন্দর এলাকায় কর্তৃপক্ষের কর্মচারী দ্বারা সরাসরি শুল্ক আদায় করা হয়। বন্দর বিভাগের যাবতীয় কার্যাবলী ১ জন উপ-পরিচালকের অধীনে সম্পাদন করা হচ্ছে।

ক)  আইডব্লিউটিএ অর্ডিন্যান্স-১৯৫৮, পোর্ট এ্যাক্ট-১৯০৮ এবং পোর্ট রুলস- ১৯৬৮ অনুসারে অভ্যন্তরীন নদী বন্দর, লঞ্চঘাট/ল্যান্ডিং ষ্টেশন, ফেরীঘাট সমূহের উন্নয়ন, নিয়ন্ত্রন ও পরিচালন।

খ)  বিভিন্ন লঞ্চঘাট, ফেরীঘাট, শুল্ক আদায় কেন্দ্র, লেবার হ্যান্ডলিং পয়েন্ট, টার্মিনাল, উপকুলীয় টার্মিনাল জেটি ইত্যাদি ইজারার মাধ্যমে রাজস্ব আদায় করা।

গ)  সকল লঞ্চঘাট, ফেরীঘাট, শুল্ক আদায় কেন্দ্র, লেবার হ্যান্ডলিং পয়েন্ট, টার্মিনাল, উপকুলীয় টার্মিনাল জেটিসমূহের উন্নয়ন।

ঘ)  যাত্রী ও মালামাল উঠানামার বন্দর সুবিধাদিপ্রদান করাসহ রক্ষনাবেক্ষনের ব্যবস্থা গ্রহণ।

ঙ)  নদী বন্দর সমূহের তীরভূমির জমি ব্যবহারের লাইসেন্স প্রদান ও নবায়ন এবং তীরভূমিতে স্থাপনা/জেটি নির্মানের লাইসেন্স ও নবায়ন।

চ)  নদী বন্দর সীমার মধ্য থেকে মাটি/বালি উত্তোলনের অনুমতি প্রদান এবং বন্দর সীমার বাইরে নদী থেকে মাটি/বালি উত্তোলনের অনাপত্তি প্রদান করাসহ অন্যান্য কাজ।

০২। নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগঃ

 

কর্তৃপক্ষের সভা নং- ০৪/২০০৮, তারিখঃ ২৯/০৪/২০০৮ মোতাবেক কর্তৃপক্ষের দপ্তর আদেশ নং-৫৮৪/২০০৮ দ্বারা গত ১৫/০৫/২০০৮ তারিখে বন্দর ও পরিবহন বিভাগ বিভক্ত হয়ে নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগ নামে একটি নতুন বিভাগ এর কার্যক্রম শুরু হয়। ১৯৭০ সালে টাইম এন্ড ফেয়ার টেবিল এপ্রোভাল রুলস এবং ১৯৭৬ সালের ইনল্যান্ড শিপিং অর্ডিন্যান্স এর সাথে সংগতি রেখে নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের যাবতীয় কার্যাবলী ১ জন উপ-পরিচালকের অধীনে সম্পাদন করা হচ্ছে।

ক)অভ্যন্তরীণ নৌ-পথে নৌ-চলাচল নিয়ন্ত্রণ;

খ) যাত্রীবাহী লঞ্চসমূহের সময়সূচী অনুমোদন;

গ) নৌ-যানে পরিবাহিত যাত্রী ভাড়া নির্ধারণ;

ঘ) পরিবহন জরিপ কাজ সম্পাদন;

ঙ) যাত্রী  ও মালামাল নিরাপদে পরিবহনের জন্য বন্দর সমূহে আবহাওয়া সতর্ক সংকেত প্রদর্শণ;

চ) বিধি ভংগের কারণে যাত্রীবাহী লঞ্চ সমূহের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ;

ছ) নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তর যাত্রী ও মালামাল পরিবহনের উপর প্রতিবেদন প্রকাশ;

জ) নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তর যাত্রীবাহী লঞ্চের সময়-সূচী সংক্রান্ত নির্দেশিকা প্রকাশ;

ঝ) উপকুলী অঞ্চল সারা বৎসর অশান্ত এবং মৌসুমী অশান্ত নৌ-পথে যাত্রীবাহী নৌ-যান চলাচলের নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা কার্যকর করা;

ঞ) বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সম্পাদিত অভ্যন্তরীণ নৌ-অতিক্রমন ও বানিজ্য প্রটোকলের আওতায় সকল কার্যাদি পালন;

ট) বিভিন্ন স্থান ও নৌ-পথে পরিবহন গুরুত্ব বিবেচনা করে উন্নয়ন প্রস্তাব প্রণয়ন;

ঠ) অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন ব্যবস্থা সম্পর্কিত অন্যান্য সকল দায়িত্ব পালন করা।

০৩। নৌ-সংরক্ষন ও পরিচালন বিভাগঃ

 

নিরাপদভাবে নৌ-চলাচলের জন্য নাব্যতা সৃষ্টির উদ্দেশ্যে নৌ-পথ সংরক্ষণ ও নদী খননের কর্মসূচী প্রণয়ন ও নৌ-পরিবহনের সুবিধার্থে নৌ-পথে বয়া বাতি, বিকন বাতি, লোহার মার্কা, পিসি পোল মার্কা, বিভিন্ন ধরনের জিপি সীট/সিআইসীট এর মার্কা, বাঁশের মার্কা ইত্যাদি সংগ্রহ, স্থাপন ও সংরক্ষণ করার কাজ করে থাকে। নৌ-সংরক্ষন ও পরিচালন বিভাগের যাবতীয় কার্যাবলী ১ জন উর্দ্ধতন উপ-পরিচালকের অধীনে সম্পাদন করা হচ্ছে।

ক) পাইলটেজ সার্ভিস অর্ডিন্যান্স অনুযায়ী এবং প্রয়োজন অনুসারে বিভিন্ন নৌ-পথে নৌ-যান চলাচলে সহায়তার জন্য নৌ-যানে পাইলটেজ সার্ভিস প্রদান করা;

খ) নতুন নৌ-পথ খুঁজে বের করা ও জরিপ পরিচালনায় সহায়তা করা;

গ) যাত্রী ও মালামাল নিরাপদে উঠানামার সুবিধার্থে বিভিন্ন ঘাটে পন্টুন স্থাপন, প্রতিস্থাপন, পুনস্থাপন ও সমন্বয় করা;

ঘ) নৌ-পথের ড্রাফট, ভার্টিক্যাল ও হরিজন্টাল ক্লিয়ারেন্সের মাত্রা উল্লেখ করে মাসিক ভিত্তিতে নদী বিজ্ঞপ্তি জারী করা;

ঙ) নাব্য নৌ-পথে কোন জাহাজ ডুবে গেলে তা উদ্ধারের ব্যবস্থা করা;

৪) প্রকৌশল বিভাগঃ

 

নদী বন্দরের বিদ্যমান অবকাঠামো উন্নয়ন এর মাধ্যমে যাত্রী চলাচল সুবিধাদি নিরাপদ ও নিশ্চিত করা, যাত্রী সুবিধাদি সময় উপযোগী ও চাহিদার সাথে সংগতি রেখে নতুন অবকাঠামো নির্মানের সম্ভাব্যতা যাচাই, প্রকল্প প্রণয়ণ, স্থাপনা নির্মাণ, মেরামত ও সংরক্ষণ করা প্রকৌশল বিভাগের অন্যতম দায়িত্ব। একজন নির্বাহী প্রকৌশলীর অধীনে প্রকৌশল বিভাগ পরিচালিত হচ্ছে।

ক) চাঁদপুরস্থ কর্তৃপক্ষের বিভিন্ন স্থাপনা (আবাসিক ভবনসহ) এবং টার্মিনাল ভবন, ষ্টীল গ্যাংওয়ে, আরসিসি জেটি, ট্রানজিট শেড ইত্যাদি ল্যান্ডিং সুবিধাদি নির্মাণ, মেরামত ও সংরক্ষণ করা;

খ) ফেরীঘাট নির্মাণসহ ফেরী টার্মিনাল, পাকিং ইয়ার্ড, সংযোগ সড়ক, যাত্রী বিশ্রামাগার ইত্যাদি নির্মাণ, মেরামত ও সংরক্ষণ কাজ;

গ) প্রয়োজনের সময় জমি অধিগ্রহণের ব্যবস্থা গ্রহণসহ নতুন প্রকল্প প্রণয়ন এবং জরিপ কাজ;

ঘ) নদী বন্দরের সীমানা নির্ধারণ, ভূমি জরিপ ও অধিগ্রহণ, অবকাঠামো উন্নয়ন, বন্দর সুবিধাদি বৃদ্ধি ইত্যাদি কাজ;

ঙ) চাঁদপুর নদী বন্দরের নিয়ন্ত্রণাধীন বিভিন্ন জেলায় অবস্থিত লঞ্চ ঘাটের পন্টুন, জেটি, কর্তৃপক্ষের স্থাপনা মেরামত ও সংরক্ষণ কাজ;

৫) হিসাব বিভাগঃ

 

চাঁদপুরস্থ কর্তৃপক্ষের সকল প্রকার আয় ও ব্যয়ের হিসাব সংরক্ষণ করে থাকে। কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন/ভাতা পরিশোধ করা সহ হিসাব সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যাবলী একজন সহকারী পরিচালক এর অধীনে সম্পাদন করা হয়ে থাকে।

ক) কর্মকর্তা/কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদি পরিশোধ করা;

খ) বিভিন্ন ঘাট/পয়েন্ট হতে প্রাপ্ত অর্থ জমা গ্রহণ করা;

গ) আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত সকল কাজ সম্পাদন করা।


Share with :

Facebook Twitter